পিসি অ্যাক্সেসরিজ বা ল্যাপটপ কোম্পানি হিসেবে আসুস দেশে-বিদেশে বেশি পরিচিত। তবে সম্প্রতি তাইওয়ানের এই ব্র্যান্ডের ফোনগুলোও বেশ জনপ্রিয় হতে শুরু করেছে। ফ্ল্যাগশিপ ফোন জেনফোন ২ বাজারে আসার ঠিক আগে প্রতিষ্ঠানটি বাজারে ছেড়েছে এক বাজেট ফোন—আসুস জেনফোন সি। দাম ৮ হাজার ৩০০ টাকা।

ডিজাইন
এটি প্লাস্টিক বডি ফোন। পেছনের অল্প বেঁকে যাওয়া বডির নিচে আসুসের চকচকে লোগো রয়েছে। লোগোর এক বৈশিষ্ট্য হলো, যেদিক থেকেই দেখুন না কেন, সবসময় জ্বলজ্বল করবে এটি।
১৫০ গ্রাম ওজন ফোনটির, তাই খুব বেশি হালকা বলা যাবে না।

ডিসপ্লে
সাড়ে চার ইঞ্চি আইপিএস এলসিডি ডিসপ্লেতে ৪৮০*৮৫৪ রেজ্যুলেশন বেশ কম। এলসিডি স্ক্রিনের পিপিআই ২০১, শার্পনেসও খুব বেশি নয়। কালার ব্যালেন্স যদিও বেশ ভালো, কিন্তু কম রেজ্যুলেশনের জন্য তা ঢাকা পড়ে যায়।

Zenfone C

সফটওয়্যার
সফটওয়্যার নিঃসন্দেহে ফোনটির সবচেয়ে আকর্ষণীয় দিক। অ্যান্ড্রয়েড কিটক্যাটের ওপর সুন্দরভাবে সাজানো রয়েছে আসুসের নিজস্ব ইন্টারফেস। অ্যাপ আইকন, মেনু সবকিছুর মধ্যেই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন ভাব রয়েছে।
আসুসের নিজস্ব কিছু অ্যাপ রয়েছে। যেমন- পিসির সাথে দ্রুতগতিতে ফাইল আদান প্রদানের জন্য ‘পিসি লিঙ্ক’, অমলেট নামে জনপ্রিয় চ্যাটিং অ্যাপ, নোট রাখার জন্য ‘জিনিও’ ইত্যাদি। ফোনের অডিও এক্সপেরিয়েন্স উন্নত করার জন্য ‘অডিও উইজার্ড’ নামে দারুণ প্রয়োজনীয় এক অ্যাপও আছে।

ক্যামেরা
পেছনে ৫ মেগাপিক্সেল ও সামনে ভিজিএ ক্যামেরা রয়েছে। প্রধান ক্যামেরায় ভালো ছবি আসলেও ফ্রন্ট ক্যামেরায় খুবই বাজে ছবি আসবে। এলইডি ফ্ল্যাশ আছে। সেলফি তোলার জন্য একেবারেই ভালো নয় ফোনটি।

asus zenfone c 2

পারফর্মেন্স
এর প্রসেসরটি অন্যান্য ফোনের থেকে আলাদা। কারণ, এতে ১ জিবি র্যা মের পাশাপাশি ইন্টেল অ্যাটম প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। পারফর্মেন্স তাই খুবই ভালো। দামে এই দিক দিয়ে অন্যান্য ফোনের থেকে এগিয়ে আসুস জেনফোন সি। চমৎকার ইউজার ইন্টারফেস ও গতি মিলিয়ে এর অভিজ্ঞতা দারুণই বলতে হবে।

ইন্টারনাল ৮ জিবি স্পেসের পাশাপাশি মেমোরি কার্ড দিয়ে ৬৪ জিবি পর্যন্ত জায়গা বাড়াতে পারবেন।

ব্যাটারি
২১০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ারের মাঝারি ব্যাটারি লাইফ। সর্বোচ্চ ৭ ঘণ্টা পর্যন্ত টানা চলতে পারবে এই ফোন।

এক নজরে ভালো
– দেখতে চমৎকার
– শক্তিশালী পারফর্মেন্স

এক নজরে খারাপ
– বাজে ডিসপ্লে
– খুব বাজে ক্যামেরা

———— টেকশহর অবল্মবনে

Leave a comment